সহস্রাধিক কলেজ শিক্ষক নতুন করে এমপিওভুক্ত হচ্ছেন 1

সমাজে জ্ঞান বিস্তার ও নৈতিক চেতনা জাগ্রত করার মহান কারিগর হলেন শিক্ষক। কিন্তু দিনের পর দিন বিনাবেতনে চাকরি করেছেন অনেক কলেজ শিক্ষক। তবে এবার অনেকেরই কপাল খুলতে যাচ্ছে। সারাদেশের সহস্রাধিক কলেজ শিক্ষক এমপিওভুক্ত করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার।

সংশ্লিষ্ট সূত্র মতে, দেশের বেসরকারি কলেজে তৃতীয় শিক্ষক হিসেবে পরিচিত অনেকে বিনাবেতনে অথবা শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান থেকে দেয়া সামান্য অর্থ পাচ্ছিলেন। এবার এসব তৃতীয় শিক্ষক এমপিওভুক্তির আওতায় আসছেন।

এর আগে এক একটি বিষয়ে দুইজন করে শিক্ষক এমপিওভুক্ত হওয়ায় এই শিক্ষকরা (তৃতীয় শিক্ষক হিসেবে পরিচিত) সরকারি সুবিধা পাচ্ছিলেন না।

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের নিয়ম অনুযায়ী, কোনো বেসরকারি কলেজে কোনো বিষয়ে ডিগ্রি পড়াতে গেলে অন্তত তিনজন শিক্ষক থাকতে হবে। অনার্স পড়াতে গেলে চারজন শিক্ষক লাগে। অথচ মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদফতরের নিয়ম অনুসারে একটি বিষয়ে মাত্র দুজন শিক্ষক এমপিওভুক্ত হতে পারেন।

এই দুজনের বেতন সরকার থেকে দেয়া হয়। একই বিষয়ের তৃতীয় শিক্ষকের বেতন-ভাতা কলেজ তহবিল থেকে পরিশোধ করতে হয়।

সরকারি এ নিয়মের কারণে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে দেশের সব ডিগ্রি কলেজে বিষয়ভিত্তিক তৃতীয় শিক্ষকরা এতদিন এমপিও সুবিধা থেকে বঞ্চিত ছিলেন। এবার তারাও পাবেন এই সুবিধা।

জানা গেছে, গত মে মাসে শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনির কাছে তৃতীয় শিক্ষকদের এমপিওভুক্ত করার আবেদন করেন বাংলাদেশ ডিগ্রি (তৃতীয়) শিক্ষক পরিষদের সভাপতি আবু বক্কর সিদ্দিক ও সাধারণ সম্পাদক রুমানা পারভীন।

এই আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগ সম্প্রতি মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা (মাউশি) অধিদফতরের মহাপরিচালকের কাছে তৃতীয় শিক্ষকদের এমপিওভুক্তির বিষয়ে সুস্পষ্ট মতামত জানতে চায়।

মাউশির মহাপরিচালক অধ্যাপক সৈয়দ মো. গোলাম ফারুক মন্ত্রণালয়ে তার মতামত পাঠিয়ে দেন।

এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, আমরা মন্ত্রণালয়কে মতামত জানিয়েছি। সেখানে আর্থিক সংশ্নেষও তুলে ধরা হয়েছে। এখন মন্ত্রণালয়ই এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেবে।

মন্ত্রণালয়ের একটি নির্ভরযোগ্য সূত্র জানায়, শিগগিরই শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সভায় এসব বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত হবে।