বিধি অনুযায়ী ”২০১৩” সালের পূর্বে নব‍্য শিক্ষকদের গ্রেডেশনভুক্ত হওয়ার সুযোগ নেই!

১৫/০৯/১৯ তারিখে প্রা,শি,অ, থেকে জারিকৃত সমন্বিত জ‍্যেষ্ঠতা তালিকা নিয়ে আমার কথা।

প্রাশিঅ থেকে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষকদের সম্মিলিত পূর্ণাঙ্গ জ‍্যেষ্ঠতা তালিকা সহ হালনাগাদ তথ্য চেয়ে জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসারদের যে চিঠি দিয়েছেন,তাতে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় শিক্ষক নিয়োগ বিধিমালা ২০১৩ এবং অধিগ্রহণ কৃত বেঃপ্রাঃবিঃ শিক্ষক বিধিমালা ২০১৩ এর আলোকে প্রধান শিক্ষক পদে পদোন্নতি প্রদানের জন্য সম্মিলিত পূর্ণাঙ্গ জ‍্যেষ্ঠতা তালিকা করার আদেশ দিয়েছেন।
সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় শিক্ষক নিয়োগ বিধিমালা ২০১৩ এ তফসিল অংশে পদোন্নতির যোগ‍্যতা "সহকারী শিক্ষকের ক্ষেত্রে উক্ত পদে ৭ বছরের অভিজ্ঞতা, তবে শর্ত উচ্চ মাধ্যমিক বা সমমানের পরীক্ষায় সি ইন এড বা ডিপিএড প্রশিক্ষণ থাকতে হবে।
এখানে সহকারী শিক্ষক হিসেবে অভিজ্ঞতার কথা বলা হয়েছে। তার একটা স্পষ্ট ব‍্যাখ‍্যা এই বিধিমালার বিধি ২ এর ( ঝ) নং সংজ্ঞায় উল্লেখ আছে ।
বিধি ২ এর সংজ্ঞা (ঝ) তে স্পষ্ট উল্লেখ আছে " অভিজ্ঞতা বলিতে সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়সমুহে শিক্ষকতার অভিজ্ঞতা বুঝাইবে"
এ দ্বারা স্পষ্টই প্রমাণ হলো ১/১/১৩ তারিখে জাতীয়করণ কৃত কোনো শিক্ষকই ১৫/৯/১৯ তারিখের চিঠি অনুযায়ী গ্রেডেশন তালিকায় অন্তর্ভুক্ত হতে পারবেনা।কারণ তাদের সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে চাকুরীর ৭ বছরের অভিজ্ঞতা এখনো হয়নি।
* উল্লেখিত চিঠিতে অধিগ্রহণকৃত বেঃপ্রাঃবিঃশিঃ(চাকুরীর শর্তাদি নির্ধারণ) বিধিমালা ২০১৩ এর আলোকে সম্মিলিত জ‍্যেষ্ঠতা তালিকা করার কথাও উল্লেখ করা হয়েছে।
এই বিধিমালার ৯ নং বিধির উপবিধি (১) এ লেখা আছে " বিধি ৪ এর অধীন কোন শিক্ষকের নিয়োগ প্রদানের তারিখ হইতে কার্যকর চাকুরীকাল এর ভিত্তিতে শিক্ষক পদে তাহার জ্যেষ্ঠতা গণনা করা হইবে এবং উক্ত তারিখের অব্যবহিত পূর্বে নিয়োগবিধির অধীন শিক্ষক পদে সরাসরি নিয়োগ প্রাপ্ত সর্বশেষ ব্যক্তির নিচে উক্ত শিক্ষকের অবস্থান হইবে"।
এখানে "বিধি ৪ এর অধীন কোনো শিক্ষকের নিয়োগ প্রদানের তারিখ হইতে" এই কথাটির অর্থ বুঝতে হবে।
নিয়োগ কারী কর্তৃপক্ষ হলেন সংশ্লিষ্ট ডিপিইও। বিধি ৪ এর উপবিধি ১:ক:অ: বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে নিয়োগ সরকারের প্রচলিত আদেশ অনুসরণে হইলে, আ: প্রয়োজনীয় যোগ্যতা থাকিলে, ই: পূর্বের চাকুরীর ধারাবাহিকতা অব্যাহত ভাবে থাকিলে,ঈ: পূর্ববর্তী সন্তোষজনক হইলে,
তাহাকে আইনের section 3 এর sub section 2 এর clause b এর বিধান অনুসারে শিক্ষক পদে নিয়োগ প্রদান করিয়াছেন মর্মে প্রয়োজনীয় আদেশ জারি করবে।
অর্থাৎ বিধি ৪ এর উল্লেখিত এই সকল যোগ‍্যতা ,শর্তের বিধান মেনে নিয়োগকারী কর্তৃপক্ষ সংশ্লিষ্ট ডিপিইও নিয়োগ প্রদান করে প্রয়োজনীয় আদেশ জারি করবেন।
আরো পরিষ্কার ভাবে সকলকে বুঝতে হবে যে ডিপিইও নিয়োগ প্রদান করে প্রয়োজনীয় আদেশ জারি করবেন মানে হলো ১/১/১৩ তারিখেই নিয়োগ ও প্রয়োজনীয় আদেশ জারি করেছেন।
সুতরাং বিধি ৯ তে যে বিধি ৪ এর কথা উল্লেখ আছে তার স্পষ্ট করা হলো।
বিধি ৪ এর অধীনে কোনো শিক্ষক নিয়োগ প্রদানের তারিখ হইতে, অর্থাৎ ১/১/১৩ তারিখ হইতে কার্যকর চাকুরীকালের ভিত্তিতে শিক্ষক পদে তাহার জ‍্যেষ্ঠতা গণনা করা হইবে। বিধি ৯ এর উপবিধি ১ এর শেষাংশে আছে "উক্ত তারিখের অব‍্যবহিত পূর্বে অর্থাৎ ১/১/১৩ তারিখের অব‍্যবহিত পূর্বে নিয়োগ বিধির অধীনে শিক্ষক পদে সরাসরি নিয়োগপ্রাপ্ত সর্বশেষ ব‍্যক্তির নিচে উক্ত শিক্ষকের অবস্থান হইবে।এর মানে হলো ৩১/১২/১২ তারিখের মধ্যে নিয়োগ বিধিমালা অনুযায়ী সরাসরি নিয়োগকৃত শিক্ষকদের পরে জাতীয়করণ কৃত শিক্ষকদের জ‍্যেষ্ঠতা নির্ধারণ হবে কার্যকর চাকুরীকাল ৫০% হিসেবে।
গ্রেডেশন তালিকা নিয়ে আমার লেখা মনগড়া নয়। বিধিমালার বিভিন্ন ধারা উল্লেখ করে লিখেছি।আইন ব‍্যতিত কোনো কিছু লিখে থাকলে স্পষ্ট প্রমাণ এবং ব‍্যাখ‍্যা দেয়ার অনুরোধ করছি।