ই-রেজিস্ট্রেশন শুরু শূন্য পদের তথ্য দিতে প্রতিষ্ঠান প্রধানদের

তৃতীয়বারের মতো সব বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শূন্যপদে শিক্ষক নিয়োগের সুপারিশ প্রস্তুতি শুরু করেছে বেসরকারি শিক্ষক নিবন্ধন ও প্রত্যয়ন কর্তৃপক্ষ (এনটিআরসিএ)। এ জন্য প্রতিষ্ঠানগুলোতে আবারো শূন্যপদের চাহিদা চাওয়া হবে। আর শূন্যপদের তথ্য দিতে সব বেসরকারি স্কুল, কলেজ, মাদরাসা, কারিগরি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোকে বাধ্যতামূলকভাবে ই-রেজিস্ট্রেশন করতে বলেছে এনটিআরসিএ। আজ রোববার (২৭ অক্টোবর) থেকে ই-রেজিস্ট্রেশন প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে। আগামী ১১ নভেম্বর পর্যন্ত চলবে। আর এ সময়ের মধ্যে আগে রেজিস্ট্রেশন করা প্রতিষ্ঠানগুলোও তথ্য হালানাগাদ করার সুযোগ পাবে। ই-রেজিস্ট্রেশন শেষে প্রতিষ্ঠান প্রধানদের কাছে ই রিকুইজিশন বা শূন্যপদের তথ্য চাওয়া হবে। ই-রেজিস্ট্রেশন প্রক্রিয়া সুষ্ঠুভাবে পরিচালনা করতে উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা, জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা ও প্রতিষ্ঠান প্রধানদের জন্য পৃথক তিনটি নির্দেশিকা প্রকাশ করেছে এনটিআরসিএ। এনটিআরসিএর কর্মকর্তারা  এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

কর্মকর্তারা  বলেন, ৩য় নিয়োগ চক্রের মাধ্যমে বেসরকারি শিক্ষক সুপারিশের কাজ শুরু হতে যাচ্ছে। তাই, প্রতিষ্ঠানগুলো থেকে শূন্যপদের তথ্য চাওয়া হবে। বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের এন্ট্রি লেভেলের শূন্যপদের তথ্য দেয়ার পূর্বশর্ত হলো প্রতিষ্ঠানের ই-রেজিস্ট্রেশন করা। তাই প্রতিষ্ঠান প্রধানদের ইরেজিস্ট্রেশন করতে বলা হয়েছে। শিক্ষক নিয়োগের কাজ সুষ্ঠু ও স্বচ্ছভাবে সম্পন্ন করাতে শূন্যপদের তথ্য সঠিকভাবে এনটিআরসিএকে দেয়া বাধ্যতামূলক। কোনো ধরনের ভুল-ভ্রান্তি এড়ানোর জন্য সংশ্লিষ্ট সব বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ই-রেজিস্ট্রেশন বাধ্যতামূলক। যে সব বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ই-রেজিস্ট্রেশন এখনও সম্পন্ন করা হয়নি, সে সব প্রতিষ্ঠান প্রধানকে ই-রেজিস্ট্রেশন করতে হবে। ই-রেজিস্ট্রেশন করে প্রতিষ্ঠানগুলোকে আইডি ও পাসওয়ার্ড সংরক্ষণ করতে বলা হয়েছে। একই সাথে যেসব প্রতিষ্ঠানের তথ্য হালনাগাদ বা সংশোধন করা প্রয়োজন সেসব প্রতিষ্ঠানকে ই-রেজিস্ট্রেশনের সময় তথ্য হালনাগাদ করতে বলা হয়েছে। এনটিআরসিএর নির্ধারিত ওয়েবসাইটে (http://ngi.teletalk.com.bd/ntrca/app/) গিয়ে ই রেজিস্ট্রেশন করতে পারবেন প্রতিষ্ঠান প্রধানরা।

এনটিআরসিএর কর্মকর্তারা আরও জানান, ই-রেজিস্ট্রেশনের বিষয়ে জেলা, উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তাদের নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। শিক্ষা কর্মকর্তাদের সাথে যোগাযোগ করে ই-রেজিস্ট্রেশন কার্যক্রম সম্পন্ন করতে বলা হয়েছে প্রতিষ্ঠান প্রধানদের। আগামী ২৭ অক্টোবর থেকে ১১ নভেম্বর পর্যন্ত ই-রেজিস্ট্রেশন করতে বলা হয়েছে প্রতিষ্ঠানগুলোকে। বিষয়টি জানিয়ে গত ২১ অক্টোবর একটি নির্দেশনাও জারি করেছে এনটিআরসিএ। 

কর্মকর্তারা আরও বলেন, ইউজার আইডি ও পাসওয়ার্ড সংরক্ষণ করতে বলা হয়েছে প্রতিষ্ঠান প্রধানদের। কেউ যাতে এই ইউজার আইডি ও পাসওয়ার্ড ব্যবহার করে জালিয়াতি করতে না পারে তা নিশ্চিত করতে বলা হয়েছে প্রতিষ্ঠান প্রধানদের। এ বিষয়ে যাবতীয় তথ্য দিতে হেল্পলাইন সেবা দিচ্ছে এনটিআরসিএ। ০২-৪১০৩০১৩১ এবং ০২-৪১০৩০৩৯৩ নম্বর ফোন করে প্রতিষ্ঠান প্রধানরা ই-রেজিস্ট্রেশন ও তথ্য হালানাদকরণের বিষয়ে বিস্তারিত জানতে পারবেন।

কর্মকর্তারা আরও জানান, ই-রেজিস্ট্রেশন প্রক্রিয়া সুষ্ঠুভাবে পরিচালনা করতে উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা, জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা ও প্রতিষ্ঠান প্রধানদের জন্য পৃথক তিনটি নির্দেশিকা প্রকাশ করেছে এনটিআরসিএ।