ডেপুটি স্পিকারের নতুন নির্দেশনা শিক্ষকদের প্রতি

সরকারি প্রাথমিক স্কুল থেকে শুরু করে উচ্চ মাধ্যমিক বিদ্যালয় পর্যন্ত সকল শিক্ষকদের এবার নতুন বেশকিছু নির্দেশনা দিয়েছেন জাতীয় সংসদের ডেপুটি স্পিকার মো. ফজলে রাব্বী মিয়া।

গত শনিবার গাইবান্ধার সাঘাটা উপজেলা পদুমশহর ইউনিয়নে নয়াবন্দর উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে মুজিববর্ষ উপলক্ষে অনুষ্ঠিত এক আলোচনা সভায় তিনি এই নির্দেশনার কথা জানান।

ডেপুটি স্পিকার বলেন, ‘ছাত্র-ছাত্রীদের লেখাপড়া শেখানোর ক্ষেত্রে শিক্ষকদের আরও আন্তরিক হতে হবে। একইসঙ্গে তাদেরকে আরও দায়িত্বশীল ভূমিকা পালন করতে হবে।’

তিনি আরও বলেন, ‘মানসম্মত শিক্ষার বিকাশে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখছে। দেশ গড়ার কাজে শিক্ষার্থীদের দক্ষ মানবসম্পদ এবং সু-নাগরিক হিসেবে গড়ে তোলার ক্ষেত্রে শিক্ষকদের আরও নতুনভাবে তৈরি হতে হবে।’

শিক্ষাকে এগিয়ে নিতে সবাইকে একসঙ্গে কাজ করার আহ্বান জানিয়ে ফজলে রাব্বী মিয়া বলেন, ‘৭১ সালে যুদ্ধবিধ্বস্ত দেশে যখন পুনর্গঠনের কাজ চলছে, তখন জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান উপলদ্ধি করেছিলেন বাঙালি জাতিকে এগিয়ে নিতে হলে শিক্ষাকে অগ্রাধিকার দিতে হবে। তাই তিনি ১৯৭৩ সালে ৩৭ হাজার প্রাথমিক বিদ্যালয়কে জাতীয়করণ করেন। পরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ৪ দফায় ২৬ হাজারেরও বেশি প্রাথমিক বিদ্যালয়কে জাতীয়করণ করেছেন। তিনি শিক্ষকদের অনেক সুযোগ সুবিধা বৃদ্ধি করেছেন। আপনারা বিবেককে ফাঁকি দেবেন না।’

এসময় শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, ‘জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান একটা দুর্গম এলাকায় জন্মগ্রহণ করেও বিশ্বমানের নেতা হয়েছিলেন। তার মতো অনুকরণীয় নেতা হতে হলে শিশু কিশোরদের লেখাপড়ায় মনোনিবেশ করতে হবে।’

সমাবেশে আরও বক্তব্য দেন- সাঘাটা উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মো. জাহাঙ্গীর কবির, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর, সাঘাটা উপজেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মো. নাজমুল হুদা দুদু, সাঘাটা উপজেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক মো. নাসিরুল আলম স্বপন প্রমুখ।

পরে ডেপুটি স্পিকার তার ঐচ্ছিক তহবিল থেকে গরিব মেধাবী শিক্ষার্থী, অসহায় রোগী, অসচ্ছল ব্যক্তিদের মধ্যে ৫ লাখ টাকার চেক বিতরণ করেন।