বেতন বৈষম্য সহ দ্রুত সমাধান হচ্ছে প্রাথমিক শিক্ষদের!

করোনাকালীন ও করোনা পরবর্তী মান সম্মত শিক্ষা নিশ্চিত করণের বিষয়ে বাংলাদেশ প্রাথমিক সহকারী শিক্ষক মহাজোট (৪ টি নিবন্ধিত সংগঠন) এর উদ্যোগে শীর্ষক আলোচনা অনুষ্টিত হয়। ৫ আগস্ট বুধবার দিবাগত রাত ৮টা থেকে সাড়ে ১১টা পর্যন্ত প্রাথমিক শিক্ষার মান উন্নয়নসহ করোনাকালিন সময়ে পরিক্ষা না নিয়ে মূল্যায়নের মাধ্যমে শিক্ষার্থীদের মানদন্ড নিশ্চিত করনের আলোচনা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

প্রধান অতিথি হিসাবে আলোচনায় অংশ নিয়ে প্রাথমিক ও গনশিক্ষা মন্ত্রনালয়ের সিনিয়র সচিব আকরাম আল হোসেন বলেন, প্রাথমিক শিক্ষার উন্নয়নসহ শিক্ষকদের যাবতীয় সমস্যা আমরা দ্রুত সমাধানের চেষ্ঠা চালিয়ে যাচ্ছি। এর লক্ষ্যে ইতিমধ্যে শিক্ষকদের উচ্চধাপে ১৩ তম গ্রেডে বেতন নির্ধারনসহ শতভাগ পদোন্নতির সমাধান হচ্ছে।

একটি সমন্বিত নিয়োগ বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে শিক্ষক, কর্মকর্তা ও কর্মচারী নিয়োগ প্রদানে কাজ রয়েছে চলমান। চলতি দায়িত্বপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষকদের স্থায়ীভাবে পদোন্নতি প্রদানসহ তিন বছর পূর্নতার পর পর শান্তি বিনোদন প্রদান। ডিপিএডদারীদের বেতন যাতে না কমে এ বিষয়ে ব্যবস্থা গ্রহন। আগামী অক্টোবরের মধ্যে অনলাইন বদলীর কাজ সম্পন্ন করন। সেপ্টেম্বরে স্কুল খোলার ব্যবস্থা। বর্তমান বছরের জন্য সংক্ষিপ্ত সিলেবাস প্রনয়ন। শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের সাথে যোগাযোগ স্থাপন নিশ্চিতসহ সচেতনতা বৃদ্ধি করন। বিদ্যালয় খোলার পর শিক্ষার্থীদের মধ্যে স্বাস্থ্য সচেতনতা বৃদ্ধি ও সামাজিক নিরাপত্তা ব্যবস্থা নিশ্চিত করন।

শিক্ষকদের অনলাইনে বিষয় ভিত্তিক প্রশিক্ষন প্রদান। ইংরেজি ও বাংলা বিষয়ে ওয়ান ডে ওয়ান ওয়ার্ড রয়েছে চলমান। বাংলা ও ইংরেজি বিষয়ে শিক্ষার্থীদের রিডিং পাড়া নিশ্চিত করনসহ প্রতি বিদ্যালয় থেকে দুই জন শিক্ষককে গনিত অলিম্পিয়াডে মাস্টার ট্রেইনার হিসাবে গড়ে তোলার বিষয়ে কাজ করে যাচ্ছে প্রাথমিক ও গনশিক্ষা মন্ত্রনালয়। বাংলাদেশ প্রাথমিক বিদ্যালয় সহকারী শিক্ষক সমতির সাধারণ সম্পাদক অজিত পাল এর সভাপতিত্বে ভার্চুয়াল আলোচনায় স্বাগত বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ প্রাথমিক সহকারি শিক্ষক সমাজ (এস ১২১৯৮/১৫) এর সভাপতি তপন মন্ডল।

প্রতিপাদ্য বিষয়ে উপস্থাপনা করেন বাংলাদেশ প্রাথমিক সহকারী শিক্ষক সমাজ এর সভাপতি শাহিনুর আল আমিন।জাতীয় প্রাথমিক সহকারী শিক্ষক ফাউন্ডেশনের সভাপতি শাহিনুর আক্তার এর পরিচালনা বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ প্রাথমিক বিদ্যালয় সহকারী শিক্ষক সমিতির কেন্দ্রীয় সহসভাপতি রমজান আলী, সাংগঠনিক সম্পাদক মো: গোলাম সারোয়ার,সহকারী শিক্ষক সমাজের সিনিয়র সহসভাপতি জে এম তাওহীদ হোসেন,সহকারি শিক্ষক সমাজ এর সাধারণ সম্পাদক আছাদ মিয়া, যুগ্ন সম্পাদক রফিকুল ইসলাম, সহকারী শিক্ষক ফাউন্ডেশনের যুগ্ন সম্পাদক আব্দুর রুপ।

আলোচনায় অংশ নিয়ে সময়পোযোগী বক্তব্য উত্থাপনের জন্য মহাজোট নেতৃবৃন্দকে ধন্যবাদ জানিয়ে সমাপনী বক্তব্যে বাংলাদেশ প্রাথমিক বিদ্যালয় সহকারী শিক্ষক সমতির সাধারণ সম্পাদক অজিত পাল বলেন, ২০১৪ সালের ৯ মার্চ থেকে সহকারী শিক্ষকদের ১১ তম গ্রেড এবং দ্রæত বৈষম্য নিরসন করার আহব্বান জানান। প্রাথমিক শিক্ষার উন্নয়নের স্বার্থে চলমান সার্বিক কার্যক্রমের সঠিক বাস্থবায়নের জন্য বর্তমান সচিব আকরাম আল হোসেনের চাকরীর মেয়াদ আরো তিন বছর বৃদ্ধি বিষয়ে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হস্তক্ষেপ কামনা করেন তিনি।