পাঁচ যুদ্ধজাহাজ যুক্ত বাংলাদেশ নৌবাহিনীতে

বাংলাদেশ নৌবাহিনীতে পাঁচ যুদ্ধজাহাজ যুক্ত। বাংলাদেশ নৌবাহিনী তার ফোর্সেস গোল ২০৩০ আধুনিকায়ন পরিকল্পনার অংশ হিসেবে একদিনে এযাবতকালের সর্বোচ্চ সংখ্যক পাঁচটি যুদ্ধজাহাজ যুক্ত করেছে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বৃহস্পতিবার সকালে গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে যুক্ত হয়ে নতুন জাহাজগুলোর কমিশনিং করেন। এগুলোর মধ্যে রয়েছে দুটি আধুনিক গাইডেড মিসাইল ফ্রিগেট বিএনএস ওমর ফারুক ও বিএনএস আবু উবাইদাহ, একটি গাইডেড মিসাইল করভেট বিএনএস প্রত্যাশা এবং দুটি জরিপ জাহাজ বিএনএস দর্শক ও বিএনএস তল্লাশী।

প্রধানমন্ত্রীর পক্ষে নৌবাহিনী প্রধান অ্যাডমিরাল এম শাহীন ইকবাল চট্টগ্রামের বিএনএস ঈসা খান নৌ জেটিতে জাহাজগুলোর ক্যাপ্টেনদের হাতে আনুষ্ঠানিকভাবে ‘কমিশনিং ফরম্যান’ হস্তান্তর করেন।

কমিশনিং ফরম্যান পাওয়া জাহাজ পাঁচটির ক্যাপ্টেনরা হলেন- প্রত্যাশার ক্যাপ্টেন এএম শামসুল হক, ওমর ফারুকের ক্যাপ্টেন গাজী গোলাম মোর্শেদ, আবু উবাইদাহর ক্যাপ্টেন আশরাফুজ্জামান, তল্লাশীর লে. কমান্ডার কামরুল আহসান এবং দর্শকের লে. কমান্ডার নাজমুস সাকিব সৌরভ।

পরে নৌবাহিনীর রীতি অনুযায়ী আনুষ্ঠানিকভাবে নামফলক উন্মোচন করা হয়। ফ্রিগেটগুলো চীনের পলি টেকনজলিস ইনকর্পোরেট। করভেটটি সরবরাহ করেছে সিএসওসি। আর জরিপ জাহাজ, ক্যাটামেরন টাইপের হাইড্রোগ্রাফিক গাইডেড মিসাইল করভেট দুটি তৈরি করেছে খুলনা শিপইয়ার্ড। উপকূলীয় এলাকায় নিখুঁত জরিপের কাজ নিশ্চিত করবে এগুলো।

তিনটি ফ্রিগেট ও করভেট এন্টি-সারফেস ও এন্টি-এয়ার যুদ্ধ করতে সক্ষম। এগুলোতে হেলিকপ্টার ও ড্রোন উঠা-নামা করার জন্য এভিয়েশন ডক রয়েছে।

বিএনএস ওমর ফারুক ও বিএনএস আবু উবাইদাহ এন্টি-শিপ মিসাইল, এয়ার ডিফেন্স মিসাইল, এন্টি-এয়ারক্রাফট গান, হেভি গান সিস্টেম ও এন্টি-সাবমেরিন ওয়ারফেয়ার রকেট সজ্জিত। বিএনএস প্রত্যাশায় রয়েছে দূর-পাল্লার এন্টি-শিপ মিসাইল ও এয়ার ডিফেন্স মিসাইল।

বিএনএস দর্শক ও বিএনএস তল্লাশিতে আত্মরক্ষার জন্য মেশিন গান রয়েছে। বাংলাদেশ নৌবাহিনীতে আরো পাঁচটি কোস্টাল পেট্রল ক্রাফট, ছয়টি অফশোর পেট্রল ভেসেল, দুটি বড় আকারের পেট্রল ক্রাফট ও ছয়টি গাইডেড মিসাইল ফ্রিগেট যুক্ত হচ্ছে শিগগিরই।

নৌবাহিনীকে সম্প্রসারনের অংশ হিসেবে আরো সাবমেরিন, ফিক্সড উইং এয়ারক্রাফট ও হেলিকপ্টার কেনার প্রক্রিয়া চলছে।

সূত্র: নিউজ এজেন্সি