প্রশিক্ষনার্থীদের দাবি, গাঠনিক মূল্যায়নের নামে টর্চার

দেশের বিভিন্ন পিটিআইতে কোন ক্লাস না করিয়ে ১৫০০ শব্দের বুক রিভিউ লিখার নির্দেশ দিয়েছেন। এতে করে পিটিআইতে থাকা প্রশিক্ষনার্থীরা খোভে ফেটে পড়েছেন। এই ধরনের নির্দেশনাকে তারা চরম অন্যায় বলে মনে করেন। অনেক শিক্ষার্থী মনে করেন, যে বিষয়ে পূর্ব থেকে কোন ধারনা নাই সেই বিষয়ে আমরা কিভাবে ১৫ দিনে ১৫০০ শব্দের বুক রিভিউ লিখবো। আমাদের পর্যাপ্ত ক্লাস করিয়ে পূর্ব ধারনা দিলে হয়তো তা সম্ভব হতো।

এ বিষয়ে এক প্রশিক্ষনার্থী বলেন, আমরা এতো অল্প সময়ে নতুন অজানা বিষয় কিভাবে লিখবো সেই ধারনায় নাই। সেখানে আদৌ কি আমরা এই বিষয় সম্পর্কে লিখতে পারবো। এ বিষয়টি আমাদের ইচ্ছা করে চাপিয়ে দেওযা হয়েছে ।

অপর এক প্রশিক্ষনার্থী নাম না প্রকাশ করার শর্তে বলেন, ইনকোর্স এর মূল্যায়ন হবে যতো টুকু যে বিষয়ে পড়ানো হয়েছে ততটুকুই মূল্যায়ন করা। কিন্তু ক্নাস না করিয়ে বুক রিভিউ লিখতে বলা হলো কেন? এটা ইচ্ছা করেই আমাদের উপর চাপিয়ে দেওয়া হয়েছে।

জানা গেছে, পূর্বে অনলাইনে গুগল ফর্মে পরীক্ষা নেওয়ার কথা ছিল কিন্তু প্রশিক্ষনার্থীদের বিরোধিতার কারনে তা বাতিল করে ন্যাপ গাঠনিক মূল্যায়নের নির্দেশ দেন৷ কিন্তু গাঠনিক মূল্যায়নে যেভাবে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে তা শিক্ষার্থীদের জন্য খুব দূরহ বিষয়।