ই-প্রাইমারি হালফিল ছাড়া প্রাথমিকে বদলি বা প্রশিক্ষণ নয়

আজ মঙ্গলবার (২৪ নভেম্বর) এ লক্ষ্যে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের আইএমডি পরিচালক যুগ্ম সচিব মো. বদিয়ার রহমান স্বাক্ষরিত পত্রে আগামী ৩০ নভেম্বরের মধ্যে দেশের সকল সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ভূমি, ভৌত অবকাঠামো এবং শিক্ষক তথ্য ' ই-প্রাইমারি স্কুল সিস্টেম ' এ হালনাগাদের জন্য নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

২০২১ সালের শুরু হতে অনলাইনে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের বদলি কার্য্যক্রম চালু করতে চায় প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর (ডিপিই)। এ লক্ষ্যে বদলি কার্যক্রম পরিচালনা করার সফটওয়্যারের কাজ ডিসেম্বরের মধ্যে শেষ করতে সময় নির্ধারণ করে দেয়া হয়েছে। সেটি করা সম্ভব হলে আগামী জানুয়ারি থেকেই অনলাইনে শিক্ষক বদলি কার্যক্রম শুরু করা হতে পারে বলে সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে।

চলতি বছরের নভেম্বর মাস হতে অনলাইন বদলী কার্য্যক্রম চালু করার কথা থাকলেও সফটওয়ারে বেশ কিছু বিষয় অন্তর্ভূক্তি সংক্রান্ত কারণে বদলী কার্য্যক্রম শুরু হতে বিলম্ব হচ্ছে বলেও জানা গেছে।

দীর্ঘদিন ধরেই প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের বদলীতে নানা অনিয়ম ও দূর্নিতির অভিযোগ চলে আসছে। এসব অনিয়ম ও দূর্নিতি রোধে অনলাইন বদলী কার্য্যক্রমের সফটওয়ার ইতোমধ্যে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী মো. জাকির হোসেন ও ডিপিই’র মহাপরিচালকসহ মন্ত্রণালয়ের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের উপস্থিতিতে উপস্থাপন করা হয়েছে।

এ প্রসঙ্গে ডিপিইর মহাপরিচালক আলমগীর মুহম্মদ মনসুরুল আলম বলেন, ‘আগামী ডিসেম্বর মাসের মধ্যে সফটওয়্যারের কাজ শেষ করার সময় বেধে দেয়া হয়েছে। এ সময়ের মধ্যে সকল কাজ শেষ হলে আগামী বছর থেকে অনলাইনের মাধ্যমে শিক্ষক বদলি কার্যক্রম শুরু করা হতে পারে।’

পত্রে আরও বলা হয়েছে, শিক্ষকদের ইতিপূর্বে সকল বদলীর তথ্য, শিক্ষার্থী তথ্যসহ শিক্ষকদের পিআরএল ও অবসরের তথ্যও হালফিল করতে হবে, পদ সংক্রান্ত যাবতীয় তথ্যও হালফিল করতে হবে। হালফিল তথ্য ছাড়া কোন শিক্ষক বদলী বা প্রশিক্ষণের জন্য বিবেচিত হবেন না।