পরনিন্দা,পরচর্চার অভ্যাস থেকে যেন সবাই মুক্ত থাকি

কোন মানুষের অবর্তমানে তার সম্পর্কে আজেবাজে আলোচনা করা এখন আমাদের মন্দ অভ্যাসে পরিণত হয়েছে। আমরা যেখানেই বসে থাকি, অপরের ব্যাপারে আলোচনা করতেই ব্যস্ত থাকি। অধিকাংশ আলোচনাই হয় নেতিবাচক। এটি একটি মারাত্মক মন্দ অভ্যাস।

ইসলাম ধর্মে অপরের নামে গীবত বলাকে কঠোরভাবে নিরুৎসাহিত করা হয়েছে। গীবত বলা ও শোনা দুটোই মারাত্মক গুনাহের কাজ। গীবতকারীকে শয়তানের ভাই বলেও সংজ্ঞায়িত করা হয়েছে। শয়তান আর শয়তানের ভাইয়ের স্বভাবতো একই হবার কথা। আল্লাহ আমাদের এই অপবাদ থেকে রক্ষা করুন।

আসুন, আমরা সবাই, মন থেকে এই মারাত্নক গুনাহের কাজ থেকে নিজেদের বিরত রাখার সর্বোচ্চ চেষ্টা করি। অপরের নামে পরচর্চা, পরনিন্দা করলে ব্যক্তির পারিবারিক ও সামাজিক জীবনে এর মারাত্মক কুপ্রভাব পড়ে। বর্তমানে বিভিন্ন টিভি চ্যানেলে প্রচারিত সিরিয়াল গুলোর দর্শকপ্রিয়তা ধরে রাখার জন্য পরনিন্দা, পরচর্চা বিষয়টিকে প্রাধান্য দিয়ে থাকে।

গ্রামে শহরে সর্বোত্রই অনেক মহিলারা দু-তিনজন একত্রিত হলেই, শুরু হয় পরচর্চার আসর। যার ফলস্বরূপ শুরু হয়, পারিবারিক কলহ, ঝগড়া, বিবাদ ও ব্যক্তিত্বের সংঘাত। সামাজিক ভাবেও নানা সমস্যা সৃষ্টি হয়। এই ঘৃণ্য অভ্যাস থেকে বেঁচে চলতে হলে, সকলকেই নিজ থেকে সচেতন হতে হবে। কারও অনুপস্থিতিতে বিরোপ মন্তব্য করা যাবে না। চুপ করে থাকা, কথা কম বলা, ও ঐ ধরনের আসর থেকে উঠে আসাই বুদ্ধিমানের কাজ। একজন নারী অপর আরেকজন নারীকে আপন হিসেবে, বোন হিসেবে ভাবতে হবে।

শাশুড়ী হয়ে নয়, মা হয়ে থাকতে হবে। পুত্রবধু হিসেবে নয়, নিজেকে মেয়ে হিসেবে ভাবতে হবে। নিজেদের দৃষ্টিভঙ্গি ও চিন্তাচেতনা বদলাতে পারলেই এই ঘৃণ্য অভ্যাস হতে মুক্তি সম্ভব। অন্যের সমালোচনা নয় আসুন নিজের সমালোচনা করি।

নিজের চারিত্রিক ভুলগুলো চিহ্নিত করার পর সেগুলো সংশোধন করার চেষ্টা করি। অনর্থক কথা না বলি। নিজে নিজের জিহবা ও মুখের হেফাজত করি। হে আল্লাহ, আমাদের সকলকে সকল বিপদ ও গুনাহ থেকে বেঁচে থাকার তৌফিক দান করুন। আল্লাহ সর্বশক্তিমান।

 লেখক: মোঃ সাইফুল হক খান সাদী

অনার্স, মাস্টার্স সমাজবিজ্ঞান।